রাঙ্গামাটি মেডিকেল কলেজের যাত্রা শুরু


চাইলে ২৫% নয়, ৫০% অংশ পার্বত্য কোটা পাওয়া যেতো

সংবাদ বিভাগ, আরএইচডিএএল, ১০ জানুয়ারি ২০১৫

 

123

রাঙ্গামাটিবাসীর দীর্ঘ প্রত্যাশিত এই মেডিকেল কলেজ বান্দরবান এবং খাগড়াছড়িতে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করা হয়েছিল, আমার দৃঢ় অবস্থানের কারণে জননেত্রী শেখ হাসিনার ঔদার্যে শেষ পর্যন্ত রাঙ্গামাটিতে স্থাপন করা হলো। জননেত্রী বলেছেন খাগড়াছড়িতে কৃষি কলেজ এবং বান্দরবানে ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ করা হবে, বঙ্গবন্ধুর ৪৩ তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালন উপলক্ষে জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দীপংকর তালুকদার এ কথা বলেন। সকালে পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের (পিসিপি) হামলা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, পুলিশ প্রশাসন সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করলে এ হামলা রোধ করা যেত। সম্পূর্ণ বিনা উস্কানিতে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের উপর এ হামলা করতে পারার জন্য তিনি মূলতঃ প্রশাসনকে দায়ী করেন। তিনি হামলার তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করেন এবং দায়ীদের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপের মাধ্যমে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা আজ সারাদেশে ১১টি মেডিকেল কলেজের শিক্ষা কার্যক্রম উদ্বোধন করেছেন। রাঙ্গামাটি ছাড়া অন্যান্য জেলার ১০টি কলেজ উদ্বোধন হয়েছে সাড়ম্বরে ও উৎসাহের সাথে, আর দুর্ভাগ্যজনকভাবে আমাদের রাঙ্গামাটির কলেজ উদ্বোধন হয়েছে জন সংহতি সমিতি (জেএসএস) ও তাদের সমর্থিত পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের (পিসিপি) অবরোধ ও তীব্র বাধার মধ্যে। ছাত্র ভর্তির জন্য রাঙ্গামাটির স্থানীয় কোটা এখন ২৫% পাওয়া গেছে, মেডিকেল কলেজ স্থাপন ও ব্যবস্থাপনার বিষয়ে সন্তু লারমাকে সভায় ডাকা হলেও তিনি যাননি, সেদিন গেলে এ বিষয়ে সুন্দর সমাধান আসতো এবং তিনি ৫০% দাবি করলেও সরকার তা মেনে নিতো বলে আমার বিশ্বাস। অনেক বাধা ও হুমকির মুখেও চলমান ব্যাচে নয়জন উপজাতীয় ছাত্র-ছাত্রী মেডিকেল কলেজে ভর্তি হতে পেরেছে।

তিনি আরো বলেন পাকিস্তানের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট আয়ুব খান একবার চীন সফরে গেলে স্পীকার ফজলুল কাদের চৌধুরী ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট হয়ে কুমিল্লার বিশ্ববিদ্যালয়টি চট্টগ্রামে নিয়ে আসেন, তাই চট্টগ্রামবাসী অন্তত এই একটি বিষয়ে ফজলুল কাদের চৌধুরীর কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে থাকেন। আর আমার দুর্ভাগ্য মেডিকেল কলেজখানা রাঙ্গামাটিতে নিয়ে এসে একপক্ষ আমার প্রতি তিরস্কার, এমনকি মেডিকেল কলেজ না হওয়ার জন্য সশস্ত্রভাবে প্রতিরোধ আন্দোলনে লিপ্ত রয়েছে, যা সভ্য ও শিক্ষিত সমাজে হতে পারে না। সভার সমাপনী বক্তব্যে তিনি আরো বলেন আমাদের ছাত্র-ছাত্রীরা অনেক টাকা খরচ করে জেলার বাইরে পড়তে যান, এখন নিজ ঘরে বসেই ডাক্তারি বিদ্যা শিখতে ও পড়তে পারবে। আগামী ছয় বছর পরে এ অঞ্চলে ডাক্তারের অভাব হবে না। তিনি মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠা করে দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা ব্যক্ত করেছেন।

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী মো: মুছা মাতব্বরের সঞ্চালনায় ও জননেতা দীপংকর তালুকদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হাজী মো: কামালউদ্দিন, রহুল আমিন, রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের মাননীয় চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমা, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক ও সংসদ সদস্য ফিরোজা বেগম চিনু এবং জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক সন্তোষ কুমার চাকমা।

তাদের মধ্যে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি রুহুল আমিন, পৌর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মাহফুজ, জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক নুর মোহাম্মদ কাজল এবং জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শাহ এমরান রোকন।

Web Inaugaration

এর আগে রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামী লীগের www.rhdal.com এই ওয়েবসাইটের শুভ উদ্বোধন করেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং সাবেক এমপি ও প্রতিমন্ত্রী জননন্দিত নেতা দীপংকর তালুকদার। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক মমতাজুল হক। ওয়েবসাইট খোলার প্রয়োজনীয়তা বর্ণনা করে বক্তব্য পেশ করেন জেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক বিশিষ্ট কলামিস্ট অভয় প্রকাশ চাকমা।

Print Friendly, PDF & Email

Add Comment