ছাত্রলীগের ৬৮তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে রাঙ্গামাটিতে র‌্যালি ও আলোচনা সভা

রাঙ্গামাটি রিপোর্ট –

Rally

আঞ্চলিক সংগঠনের নামে পার্বত্য অঞ্চলে যেসব সংগঠন অস্ত্রবাজি, চাঁদাবাজি ও নৈরাজ্য চালিয়ে আসছে তার জবাব দিতে পার্বত্য জনগণ ঐক্যবদ্ধ ভাবে এগিয়ে আসছে বলে মন্তব্য করেছেন সাবেক প্রতিমন্ত্রী ও রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি দীপংকর তালুকদার। তিনি বলেন, ভোট কারচুপি নয় জনগণের আন্তরিকতা ও উন্নয়নের সফলতা হিসাবে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে শেখ হাসিনাকে মেয়র উপরহার দিয়েছে পার্বত্য জনগণ। তিনি বলেন, পার্বত্য অঞ্চলের মানুষ এখন আর অস্ত্রকে ভয় করে না। তারা ঐক্যবদ্ধভাবে এই এলাকার উন্নয়নের পক্ষে রায় দিবে বলে তিনি মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, সকল জনগণ যদি ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করে তাহলে যে কোন ভালো কাজে সফলতা পেতে বেশী সময় লাগে না।

আজ ৪ জানুয়ারি সোমবার বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৬৮তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি এ কথা বলেন।

রাঙ্গামাটি জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুল জব্বার সুজনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী মুছা মাতব্বর, পৌরসভার নবাগত মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী, জেলা পরিষদ সদস্য স্মৃতি বিকাশ ত্রিপুরা, সাবেক ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক ও কাপ্তাই উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি অংসুছাইন চৌধুরী, সাবেক ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক ও জেলা স্কাউটের সাবেক কমিশনার মো: নুরুল আবছার, যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক নূর মোহাম্মদ কাজল, শ্রমিকলীগ সাধারণ সম্পাদক মো: শামসুল আলম-সহ জেলা ও উপজেলা নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে দীপংকর তালুকদার আরো বলেন, রাঙ্গামাটি পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নয়, জেএসএস-ই কারচুপি করেছে। রাঙ্গাপানি, কাটাছড়িসহ পাহাড়ি অধ্যুষিত কেন্দ্রের ফলাফল দেখলেই বোঝা যায় সেখানে ৯০ শতাংশেরও অধিক ভোট পড়েছে, যার ৯৯ শতাংশ ভোট পড়েছে জেএসএস সমর্থিত প্রার্থীর পক্ষে।

রাঙ্গামাটি পৌরসভা প্রাঙ্গনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও বেলুন উড়িয়ে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর উদ্বোধন করেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী দীপংকর তালুকদার।

এর আগে বিকাল সাড়ে ৩টায় এ উপলক্ষে রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদ প্রাঙ্গন থেকে শুরু হয়ে বর্ণাঢ্য র‌্যালি রাঙ্গামাটির প্রধান সড়ক হয়ে রাঙ্গামাটি পৌরসভা প্রাঙ্গনে এসে শেষ হয়।

সাবেক পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, ছাত্রলীগের ৬৫ বছরের ইতিহাস আমাদের মাথা উঁচু করেছে। সারা দেশে অতীতকে বিশ্লেষণ করে ভুলভ্রান্তি স্বীকার ও সেখান থেকে শিক্ষা নিতে হবে। আত্মসমালোচনার মাধ্যমে সাংগঠনিক অগ্রযাত্রা অব্যাহত রেখে আগামী দিনের পথচলা আরো সুগম করতে হবে। তিনি বলেন, ছাত্রলীগ দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বে ভূমিকা রেখেছে। টেন্ডারবাজি, মারামারি, দলাদলি যাতে ছাত্রলীগকে কলুষিত করতে না পারে সেই দিকে লক্ষ্য রাখার জন্য ছাত্রদের উপদেশ দেন। পরে মনোমুগ্ধকর ব্যান্ড সংগীত পরিবেশিত হয়।

Print Friendly, PDF & Email

Add Comment