রাঙ্গামাটির বিলাইছড়িতে ইভ্যানজেলিক্যাল চার্জ অব বাংলাদেশ গীর্জার উদ্বোধন

বিলাইছড়ি রিপোর্ট –

DT-2-749x410

সাবেক পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী বলেছেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে সকল সম্প্রদায়ের মানুষ নিজ নিজ ধর্ম ও উৎসব স্বাধীনভাবে পালন করতে পারে। এ দল মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিতে বিশ্বাসী। তিনি বলেন, ২০০৮ সালের আগে অনেক সরকার ক্ষমতায় থাকলেও সরকারি অর্থায়নে খ্রিস্টান ধর্মালম্বীদের গীর্জা নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করেনি। একমাত্র আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর সকল সম্প্রদায়ের কল্যাণে মন্দির, মসজিদ, বৌদ্ধ মন্দির, গীর্জাসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠান নির্মাণ করে দিচ্ছে।

আজ ১৮ ডিসেম্বর শুক্রবার রাঙ্গামাটির দুর্গম বিলাইছড়ি উপজেলার পাংখোয়া পাড়ায় পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের অর্থায়নে ৭৮ লক্ষ টাকা ব্যয়ে নির্মিত ইভ্যানজেলিক্যাল চার্জ অব বাংলাদেশ গীর্জার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

সাবেক পার্বত্য মন্ত্রী আরো বলেন, এ সরকার জনবান্ধব সরকার। ধর্ম মানুষকে সত্য ন্যায় ও সৎপথে অগ্রসর হতে সহায়তা করে এ উক্তিটি বর্তমান সরকার উপলব্ধি করে বিধায় সকল সম্প্রদায়ের পাশে থেকে সহায়তা করে।

ইভ্যানজেলিক্যাল চার্জ অব বাংলাদেশ গীর্জা পরিচালনা কমিটির সভাপতি লাল ছোয়াকলিয়ানা পাংখোয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন সংরক্ষিত মহিলা আসনের সাংসদ ফিরোজা বেগম চিনু, রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা, জেলা প্রশাসক মো: সামসুল আরেফিন, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের সদস্য (প্রশাসন) নূরুল আমিন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শহীদ উল্লাহ, রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের প্রাক্তন চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমা, পরিষদের সদস্য রেমলিয়ানা পাংখোয়া।

স্বাগত বক্তব্য দেন বিলাইছড়ি ইউপি সাবেক চেয়ারম্যান এ্যাংলিয়ানা পাংখোয়া। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন বিলাইছড়ি উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান জয়সেন তংচঞ্চগ্যা।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সাংসদ ফিরোজা বেগম চিনু বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামের সকল উন্নয়নে প্রধান বাধা হচ্ছে অবৈধ অস্ত্রের ব্যবহার ও চাঁদাবাজি। অবৈধ অস্ত্র দিয়ে সাধারণ মানুষদের জিম্মি করে শান্তি ও অধিকার  আদায় করা সম্ভব না। কারণ অস্ত্র কখনো মানুষকে শান্তি ও অধিকার দেয় না। মানুষের ভালোবাসা ও অধিকার পেতে হলে সাধারণ মানুষের সান্নিধ্যে যেতে হবে। অস্ত্র ছেড়ে নিরীহ মানুষের ভালোবাসা নিয়ে রাজনীতি করুন। মানুষের ভালোবাসা নিয়ে রাজনীতি করলে আওয়ামী লীগ কখনো কারো পথে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করবে না।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ রাজনীতি করে সকল সম্প্রদায়ের কল্যাণে। এই সরকারের উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি এমন কোন এলাকা বাকী নেই। তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রূপকল্প ২০২১ সালে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত করতে সকলকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

এর আগে গীর্জা পরিচালনা কমিটির পক্ষ থেকে উপস্থিত অতিথিবৃন্দের হাতে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।

Print Friendly, PDF & Email

Add Comment